• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০

 

জাবালে নূরের ২ চালক ও সহকারীর যাবজ্জীবন

নিউজ আপলোড : ঢাকা , রোববার, ০১ ডিসেম্বর ২০১৯

সংবাদ :
  • আদালত বার্তা পরিবেশক
image

রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী আবদুল করিম রাজীব (১৭) ও দিয়া খানম মিম নিহত হওয়ার ঘটনায় জাবালে নূর পরিবহনের দুই চালক এবং এক সহকারীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। পাশাপাশি ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়। এছাড়া অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় দু’জনকে খালাস দিয়েছেন বিচারক। ১ ডিসেম্বর রোববার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক কেএম ইমরুল কায়েশ এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন, জাবালে নূর পরিবহনের দুই বাস চালক মাসুম বিল্লাহ ও জুবায়ের সুমন এবং হেলপার কাজী আসাদ। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আবদুল্লাহ আবু সাংবাদিকদের বলেন, রায় ঘোষণার পর দুই চালক আসুম বিল্লাহ ও জুবায়ের সুমনকে সাজা পরোয়ানা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া হেলপার কাজী আসাদ পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। এছাড়া জাবালে নূর বাসের এক মালিক জাহাঙ্গীর আলম ও হেলপার এনায়েত হোসেনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে। এর আগে জাবালে নূরের আরেক বাসের মালিক শাহাদাত হোসেন আকন্দের অংশের কার্যক্রম উচ্চ আদালতের নির্দেশে স্থগিত রয়েছে। মামলার কার্যক্রম স্থগিত থাকা শাহাদাৎ হোসেনের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উচ্চ আদালতে যাওয়া হবে।

খালাস পাওয়া দুই আসামির বিষয়ে তিনি বলেন, চালকের সহকারী মো. এনায়েত হোসেন চালককে নিবৃত করার চেষ্টা করেছে। তার কথা না শুনে চালক জোরে গাড়ি চালিয়েছে। আর বাসের মালিক জাহাঙ্গীর আলমের দোষ প্রমাণিত হয়নি। আরেক বাসের মালিক শাহাদত হোসেন ড্রাইভারের হালকা লাইসেন্স থাকার পরও তিনি তার হাতে গাড়ি তুলে দিয়েছেন। তিনি আরও বলেন, অবৈধ লাইসেন্স দিয়ে অন্যায় করে কেউ পার পাবে না। নিরাপদ সড়ক আমরা সবাই চাই। প্রত্যেকে সুন্দরভাবে এবং সঠিক লাইসেন্স নিয়ে গাড়ি চালানো উচিত।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, রাষ্ট্রপক্ষ থেকে এই মামলায় ৩৭ জনকে আদালতে উপস্থাপন করা হয়েছে। বাসচালক মাসুম বিল্লাহসহ তিনজন আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। জবানবন্দিতে বলেছে, বাসচালক মাসুম বিল্লাহ ও অপর বাসচালক জুবায়ের সুমন জানতেন, যে ওই সড়ক ঝুঁকিপূর্ণ। তারপরও তারা সেদিন আগেভাগে যাত্রী তোলার জন্য প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হয়েছিলেন। আগে যাত্রী তোলার জন্য জোবায়ের সুমন তার বাসটি সামনে নিয়ে গিয়ে উড়ালসড়কের ঢালে জায়গা ব্লক করে রেখেছিলেন। পেছনে থাকা বাসচালক মাসুম বিল্লাহ তখন আগে যাত্রী তোলার জন্য বাম পাশ দিয়ে গিয়ে যেখানে যাত্রীরা দাঁড়িয়ে থাকেন, সেখানে বাসটি তুলে দেন। এতে রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের শিক্ষার্থী রাজিব, দিয়া খানমসহ কয়েকজন ছাত্রী গুরুতর আহত হন। চালকের সহকারী এনায়েত হোসেনের জবানবন্দি থেকে জানা যায়, বারবারই তিনি মাসুম বিল্লাহকে দ্রুত গাড়ি না চালানোর জন্য অনুরোধ করেছিলেন। তারপরও মাসুম বিল্লাহ দ্রুতগতিতে ঘটনাস্থলে গিয়ে বাস তুলে দেন।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ২৯ জুলাই দুপুরে রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে হোটেল র?্যাডিসনের বিপরীত পাশের জিল্লুর রহমান উড়ালসড়কের ঢালের সামনের রাস্তার ওপর জাবালে নূর পরিবহনের তিনটি বাস রেষারেষি করতে গিয়ে একটি বাস রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা লোকজনের ওপর উঠে পড়ে। এতে ২ শিক্ষার্থী নিহত ও ৯ জন আহত হয়। নিহত দুই শিক্ষার্থী হলো শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র আবদুল করিম রাজীব (১৭) ও একাদশ শ্রেণীর ছাত্রী দিয়া খানম মিম (১৬)। এ ঘটনায় নিহত শিক্ষার্থী দিয়া খানমের বাবা জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে ক্যান্টনমেন্ট থানায় মামলা করেন। পরে ঘটনার তদন্ত করে গত বছরের ৬ সেপ্টেম্বর জাবালে নূর বাসের মালিক শাহাদাত হোসেনসহ ছয়জনকে আসামি করে আদালতে দণ্ডবিধির ৩০৪ ধারায় অভিযোগপত্র দাখিল করেন ডিবির পরিদর্শক কাজী শরিফুল ইসলাম। ছয় আসামির বিরুদ্ধে গত ২৫ অক্টোবর অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরু করেন আদালত। পরে অভিযোগ গঠনের আদেশ চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে যান জাবালে নূরের মালিক শাহাদাত হোসেন। তার পক্ষে উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ আসে। বাকি পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলার কার্যক্রম চলে।

আদালতের পর্যবেক্ষণ : যেন মানুষ হত্যা নেশায় পরিণত হয়েছে

পরিবহন সেক্টরে চালক-হেলপারদের খাম খেয়ালিপনায় সারাদেশেই ছাত্রছাত্রী, যুবক-যুবতী, বৃদ্ধ-বৃদ্ধা, চাকরিজীবী ও সাধারণ মানুষ দুর্ঘটনায় বাসের নিচে চাপা পড়ে নিহত হচ্ছে। এই খামখেয়ালিপনা যেন মানুষ হত্যার নেশায় পরিণত হয়েছে। রাজধানীর শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের শিক্ষার্থী রাজিব-মীমকে বাস চাপা দিয়ে হত্যার মামলার রায়ে রোববার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক কেএম ইমরুল কায়েশ এই পর্যবেক্ষণ দেন। আদালত রায়ে বলেন, বাস চালক-হেলপারদের উদাসীনতায় রেহাই পাচ্ছে না সাধারণ মানুষ। তাদের বাসের চাক্কায় প্রতিনিয়ত পিষ্ট হচ্ছে অনেকে। আদালত বলেন, রাজিব-মীমকে বাস চাপা দিয়ে মারার ঘটনায় দায়ের করা এই মামলা সাধারণ মানুষের বিবেককে নাড়া দেয়। সেদিন রাজিব-মীমের আত্মীয়স্বজন, সারা দেশের শিক্ষার্থী ও সাধারণ মানুষ রাস্তায় নেমে প্রতিবাদে ফেটে পড়ে। ঘটনায় জড়িত বাসের চালক-হেলপারদেও বিচার চাইতে মাঠে নামে সবাই। সেই বিচার সম্পন্ন হলো। আদালত বলেন, পরিবহন সেক্টরের মালিক, চালক-হেলপাররা অধিক উপার্জনের জন্য মানুষের জীবনের প্রতি সম্মান প্রদর্শন না করে ভারি গাড়ি চালানোর লাইসেন্স না থাকা সত্ত্বেও বিআরটিএর অনুমোদন ছাড়াই ভারি গাড়ি চালিয়ে যত্রতত্র মানুষের গায়ের ওপর তুলে দিচ্ছে। এটা বন্ধ হওয়া আবশ্যক। এজন্য চালকরা দায়ী উল্লেখ করে আদালত বলেন, চালক-হেলপারদের অধিক জমা বেধে দেয়ার ফলে এক বাস স্টপেজ থেকে আরেক বাস স্টপেজে যাওয়ার জন্য তারা অসম ও অবৈধ প্রতিযোগিতায় অবতীর্ণ হয়। যার ফলে প্রতিনিয়ত রাস্তাঘাটে দুর্ঘটনা ঘটছে ও প্রাণহানি ঘটছে। এ ক্ষেত্রে বাস মালিকদের অধিক টাকা উপার্জনের মানসিকতা পরিহার করা আবশ্যক। এতে বলা হয়, রাস্তায় যেসব গাড়ি চলে তার চালকদের লাইসেন্স পরীক্ষা করা প্রয়োজন। হালকা যানবাহন চালানোর লাইসেন্স নিয়ে ভারি গাড়ি চালানোর বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী পরীক্ষা করলে তারা ভারি গাড়ি চালানোর সুযোগ পেত না। মালিক পক্ষ কম বেতন দেয়ার জন্য হালকা গাড়ি চালানোর লাইসেন্সধারীদের নিয়োগ দেন। উপযুক্ত যোগ্যতা না থাকা স্বত্ত্বেও ভারি গাড়ি চালানোতে দুর্ঘটনা বেশি হয়। এই প্রবণতা রোধ করতে হবে মালিকদের; একই সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের। আদালত উল্লেখ করেন, দুর্ঘটনা রোধের জন্য আইন রয়েছে। বিভিন্ন আইনে ব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু তা যথাযথভাবে প্রয়োগ হলে দুর্ঘটনা হ্রাস পাবে। আদালত চালক ও মালিকদের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়ার পরামর্শ দেন।

আদালত রায় ঘোষণার সময় বলেন, গণমাধ্যমে যারা কাজ করেন তাদেরও দায়িত্ব রয়েছে, সবাইকে সচেতন করার। আমাদের দেশের গণমাধ্যম অনেক মক্তিশালী উল্লেখ করে বিচারক বলেন, বিভিন্ন দুর্ঘটনার কারণ তারা তুলে ধরেন। দুর্ঘটনায় শত লোকের প্রাণহানি ঘটে। যাদের দায়িত্বে অবহেলায় এসব ঘটে তা জাতির সামনে তুলে ধরলে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া সহজ হয়। আদালত বলেন, ভবিষ্যতেও গণমাধ্যম সঠিক ভূমিকা পালন করবে বলে তিনি বিশ^াস করেন।

ইউনাইটেড হাসপাতালের লাইসেন্স বাতিল চেয়ে রিট

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাজধানী গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালের করোনা ইউনিটে অগ্নিকাণ্ডে ৫ রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় হাসপাতালটির লাইসেন্স বাতিল চেয়ে

করোনা পরিস্থিতি : নিয়ম ও স্বাস্থ্যবিধি কেউ মানছে না

বাকী বিল্লাহ

image

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে নানা নিয়ম মেনে চলার জন্য নির্দেশ দেয়া হলেও কেউ তা মানছে না। যত্রতত্র নিয়ম ভঙ্গ করা

করোনায় আরও ২৬১ পুলিশ আক্রান্ত

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

প্রাণঘাতী মহামারী করোনা সংক্রমণে নতুন করে পুলিশের ২৬১ সদস্য আক্রান্ত হয়েছে। একদিনে এটি সর্বোচ্চ আক্রান্ত হওয়ার রেকর্ড পুলিশ

sangbad ad

বান্দরবনে বন্দুক যুদ্ধে ইয়াবা ব্যবসায়ী নিহত

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বান্দরবনে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি’র) সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। ১ জুন সোমবার নাইক্ষংছড়ি এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের

মে মাসে ২২ কোটি ৬৯ লক্ষাধিক টাকার চোরাচালান ও মাদকদ্রব্য জব্দ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) গত মে মাসে দেশের সীমান্ত এলাকাসহ অন্য স্থানে অভিযান চালিয়ে ২২ কোটি ৬৯ লাখ ৬৮ হাজার

মির্জাপুরে ক্যাডেট কলেজসহ ১২ প্রতিষ্ঠানে শতভাগ পাস

প্রতিনিধি, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)

image

এবারের এসএসসি পরীক্ষায় টাঙ্গাইলের মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজসহ উপজেলার

পানিতে তলিয়ে যাওয়া ধান কেটে কৃষকের বাড়ি পৌছে দিলো ছাত্রলীগ

প্রতিনিধি, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)

image

ঘুর্নিঝড় আম্পানের প্রভাবে অতিবৃষ্টিতে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের ফতেপুর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামের ৫৫০ একর জমির ধান পানিতে

শিবালয়ে কাশাদহ প্রকল্পে ধান তলিয়ে : কৃষকের ঘুম হারাম

রফিকুল ইসলাম,শিবালয় (মানিকগঞ্জ)

শিবালয়ে কাশাদহ প্রজেক্টে হঠাৎ করে অসময়ে পানি প্রবেশ করায় নিচু জমির আধাপাকা ধান তলিয়ে গেছে এবং কিছু ধান তলিয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। এতে এলাকার কৃষকদের ঘুম হারাম হয়ে গেছে। বোয়ালী গ্রামের কৃষক মো. আব্দুল

পটুয়াখালীতে আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্ত ১৬ হাজার মিটার বেড়িবাঁধ

স্বপন ব্যানার্জী, পটুয়ায়াখালী

image

ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের জলোচ্ছ্বাসে পটুয়াখালী জেলার ৮উপজেলার প্রায় ১৬ হাজর মিটার বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে গেছে। প্লাবিত হয়েছে ৫ হাজার ৫৬৭ হেক্টর জমি। এতে ৪ হাজার ৩৮ মে. টন ফসলের ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। প্লাবনে সবচেয়ে ক্ষতি হয়েছে আউশ বীজতলা ও বিভিন্ন ধরনের রবি শষ্য এবং শাক-সবজির। এ দিকে

sangbad ad