• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯

 

গ্রেফতার হত্যাকারীর সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি নিহত সায়মার বাবার

নিউজ আপলোড : ঢাকা , রোববার, ০৭ জুলাই ২০১৯

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

রাজধানীর ওয়ারীতে ৭ বছরের শিশু সামিয়া আফরিন সায়মাকে ধর্ষণ করে হত্যার আগে ছাদ দেখানোর কথা বলে ডেকে নেয় ধর্ষক হারুন অর রশিদ। এর পর ভবনের ৯ তলার ফাকা ফ্লাটে নিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণ করে। ধর্ষনের পর শিশুটির উপর বর্বব নির্যাতন চালায় পাষন্ড হারুন। শিশুটিকে নৃশংসভাবে হত্যার পর গলায় রশি পেচিয়ে টেনে হিচড়ে ফ্লাটের রান্নাঘরে নিয়ে সিঙ্কের নিচে রেখে পালিয়ে যায়। ৭ জুলাই রোববার কুমিল্লা থেকে অভিযান চালিয়ে ধর্ষক হারুনকে গ্রেফতারের পর এমন তথ্য পেয়েছে ঢাকা মহানগর অপরাধ তথ্য ও গোয়েন্দা বিভাগ(ডিবি)। রোববার ধর্ষক হারুণকে গণমাধ্যমের মুখোমুখি করা হয়। এ সময় ঘটনার বিস্তারিত তুলে ধরেন ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার আব্দুল বাতেন।

ধর্ষক হারুন ওই ভবনের ভাড়াটিয়া পারভেজের খালাতো ভাই। পারভেজ যে ভবনে থাকতো সেই ভবনের ৬ তলায় থাকতো সায়মার পরিবার। গত প্রায় ২ মাস আগে হারুন পারভেজের বাসায় আসে। সে পারভেজের বাসায় থাকতো এবং তার রংয়ের দোকানে কাজ করতো। নিহত সায়মার বাবা আব্দুস সালাম জানিয়েছেন, ‘মাগরিবের আজানের সময় আমি নামাজ পড়তে মসজিদে যাই। মসজিদ থেকে ফেরার সময় সন্ধ্যার নাশতা কিনে বাসায় আসি। বাসায় এসে দেখি সায়মা নেই। আমি, আমার স্ত্রীসহ সায়মাকে খুঁজতে শুরু করি। ছয়তলা ও আটতলায় খুঁজে তাকে পাওয়া যায়নি। পরে আবার আটতলায় খুঁজতে গিয়ে রান্নাঘরে তার লাশ পাওয়া যায়।

সংবাদ সম্মেলনে ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার আব্দুল বাতেন বলেন, ৫ জুলাই শুক্রবার স্কুল ছাত্রী সায়মাকে নিজ ফ্ল্যাটে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়। ভিকটিমের বয়স ছিল ৬ বছর এবং সে সিলভার ডেল স্কুলে নার্সারিতে পড়াশোনা করত। এ বিষয়ে ভিকটিমের পিতা মোঃ আঃ সালাম ওয়ারী থানায় অভিযোগ করলে একটি মামলা রুজু হয়। ঘটনার পরপরই ওয়ারী থানা পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারে অভিযান পরিচালনা করে। থানা পুলিশের পাশাপাশি গোয়েন্দা বিভাগও ছায়া তদন্ত শুরু করে। তদন্তের এক পর্যায়ে গোয়েন্দা পূর্ব বিভাগের ওয়ারী জোনাল টিম আসামীকে কুমিল্লা থেকে অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।প্রাথমিকভাবে অভিযুক্ত ভিকটিমকে ধর্ষণ ও শ্বাসরোধ করে হত্যার বিষয়ে পুলিশের নিকট স্বীকার করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ‘শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে সাড়ে ৬টার মধ্যে এ ঘটনা ঘটে। ওই দিন সায়মা তার মাকে বলে যায় ‘ভবনের আট তলায় ফ্ল্যাট মালিক পারভেজের ছোট বাচ্চার সঙ্গে সে খেলবে। ওই ফ্ল্যাটে গেলে পারভেজের স্ত্রী জানান, তার মেয়ে ঘুমাচ্ছে। এরপর শিশুটি নিজ ফ্লাটে ফিরে আসছিলো একা। ‘ভবনের লিফটে করে নামার সময় সায়মার সঙ্গে পারভেজের খালাতো ভাই হারুনের দেখা হয়। হারুন সায়মাকে ছাদ দেখানোর কথা বলে লিফট থেকে ছাদে নিয়ে যায়। এরপর সে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করলে সায়মা চিৎকার দেয়। এ সময় সে সায়মার মুখ চেপে ধরে এবং ধর্ষণ করে। পরে সায়মাকে নিস্তেজ দেখে তার গলায় দড়ি পেঁচিয়ে টেনে ফ্ল্যাটের রান্নাঘরে নিয়ে যায়। এরপর সায়মার লাশ সিঙ্কের নিচে রেখে হারুন পালিয়ে তার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার তিতাস থানার ডাবরডাঙ্গায় চলে যায়।

শিশু ধর্ষণের ঘটনাকে মানবতাবিরোধী অপরাধ উল্লেখ করে অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) আব্দুল বাতেন বলেন, ‘এ ধরনের অপরাধীরা সাধারণত ধর্ষণের পর যখন মনে করে বিষয়টি জানাজানি হবে, বা নিজে রেহাই পাবে না, ঠিক তখনই ভুক্তভোগীকে হত্যা করে। মূলত অপরাধ ঢাকতে গিয়ে সায়মাকে হত্যা করেছে হারুন। ‘সায়মাদের পরিবারের সঙ্গে পারভেজের পরিবারের ভালো সখ্য ছিল। তবে এই ঘটনায় অন্য কোনও কারণ বা কেউ জড়িত ছিল না। হারুন এটা একাই ঘটিয়েছে।’

রোববার সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন শিশু সায়মার বাবা আব্দুস সালাম। তিবি বলেন মূল আসামি হারুন অর রশিদের দ্রুত সময়ে ফাঁসি কার্যকর করার দাবী জানাচ্ছি। আবদুস সালাম বলেন, ‘অল্প সময়ের মধ্যে মূল আসামিকে চিহ্নিত করতে পেরেছে পুলিশ। তাকে ধরতে পেরেছে। আমি চাই দ্রুত সময়ের মধ্যে, তিন মাস থেকে ছয় মাসের মধ্যে তাকে প্রকৃত শাস্তি দেওয়া হোক। সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়া হোক। সে যেহেতু আমার মেয়েকে দুই রকম নির্যাতন করে হত্যা করেছে, তাকে ছয় মাসের মধ্যে ফাঁসি দেওয়া হোক। আমি আমার মেয়েকে রক্ষা করতে পারিনি। আমার স্ত্রী আমাকে জানালো, মেয়ে তাকে বলে ‘১০ মিনিটের জন্য আমি আটতলার বাচ্চাটার সঙ্গে খেলে এসে আম্মু আমি তোমাকে পড়াগুলো দেবো’। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টা থেকে সাড়ে সাতটার মধ্যে এ ঘটনা ঘটে গেলো। আমি নামাজ পড়ে এসে আর মেয়েকে পেলাম না। আপনাদের যাদের মেয়ে আছে, সন্তান আছে এরকম কুরুচিপূর্ণ, এ রকম পশুত্ব সুলভ আচরণকারীদের কাছ থেকে কিভাবে দূরে রাখবেন, আপনারা একটু ভেবে দেখবেন। এসব পশুর কাছ থেকে বাচ্চাদের রক্ষার চেষ্টা করুন। আমি হয়তো পারি নাই আমার মেয়েকে রক্ষা করতে । যেভাবে আমার মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে আমরা কিভাবে ধৈর্য ধারণ করব। এই ঘটনায় আমার পরিবার পুরোটাই বিধ্বস্ত।

আরও পড়ুন : ‍মেয়ে হারনোর কষ্ট নিয়ে মর্গে তার মরদেহ কাটাছেড়া করতে দেখতে হয়েছে বাবকে!

এখন মশা মানেই চিৎকার-আতংক

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

মশা দেখলে ঘরে ঘরে চিৎকার আতংক। এমনকি কর্মস্থলেও এখন মশা নিয়ে আতংক বিরাজ করছে। মরণব্যাধি ডেঙ্গুজ্বর থামছে না। আক্রান্তদের

গ্রামবাসীরাই নিজেদের অর্থে কোনরকম রাস্তা সংস্কার করল

কামরুজ্জামান গেনু, নান্দাইল (ময়মনসিংহ)

image

ময়মনসিংহের নান্দাইলে জনদুর্ভোগে অতিষ্ঠ হয়ে গ্রামবাসী স্বউদ্যোগী হয়ে নিজেদের অর্থে রাস্তা সংস্কার করল। বুধবার (২১ আগস্ট) নান্দাইল উপজেলার

কুমিল্লা সদর হাসপাতালে তত্ত্বাবধায়কের কার্যালয়ে পলেস্তারা খসে পড়ায় আতঙ্ক

প্রতিনিধি, কুমিল্লা

image

১৮৫ বছরের পুরনো কুমিল্লা জেনারেল (সদর) হাসপাতালের ভবনে অনেকটা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন চিকিৎসকসহ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

sangbad ad

বাসন্ডার ভাঙনে বিলীন সড়ক দুর্ভোগে পশ্চিম ঝালকাঠিবাসী

দিলীপ মণ্ডল, ঝালকাঠি

image

পৌরসভার অন্তর্গত পশ্চিম ঝালকাঠির ৬নং ওয়ার্ডে বাসন্ডা নদীর পশ্চিম পাড় বাদামতলী মোসলেম মাঝির খেয়া ঘাট থেকে বাসন্ডা ব্রিজ পর্যন্ত

গেট খোলেনি ক্লিনিক ফটকের সামনেই সন্তান প্রসব!

প্রতিনিধি, গোপালগঞ্জ

image

গোপালগঞ্জে ক্লিনিকের ফটকের সামনের রাস্তার ওপর সন্তান প্রসব করলেন গৃহবধূ রোজিনা বেগম (৩২) । ১৯ আগস্ট সোমবার রাত সাড়ে

শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় পুলিশ সদস্য ফারুকের শেষ বিদায়

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

সহকর্মীদের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় চির বিদায় নিলেন জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা বাহিনীর মালি মিশনে মৃত্যুবরণকারী পুলিশ কনস্টেবল মো. উমর ফারুক।

আন্তঃক্যান্টনমেন্ট বির্তক প্রতিযোগিতায় মিরপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক কলেজ চ্যাম্পিয়ন

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

আন্তঃক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ বিতর্ক প্রতিযোগিতায় স্কুল শাখায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে আদমজী ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এবং কলেজ শাখায়

গ্রেনেড হামলা মামলার আপিল শুনানী চলতি বছরেই শুরু হবে : আইনমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

পেপারবুক তৈরী শেষে চলতি বছরেই একুশ আগস্ট গ্রেনেড হামলার মামলার আপিল শুনানী হাইকোর্টে শুরু হবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী

এখনও পলাতক ১৬ আসামি

বাকী বিল্লাহ ও মাসুদ রানা

image

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার সমাবেশে পরিকল্পিতভাবে ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। শেখ হাসিনাকে

sangbad ad