• banlag
  • newspaper
  • epaper

ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮

 

আউশের বাম্পার ফলন ঘুরে দাঁড়াচ্ছে কৃষক

নিউজ আপলোড : ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮

সংবাদ :
  • সংবাদ জাতীয় ডেস্ক
image

বগুড়ার নন্দীগ্রাম ও কুড়িগ্রামে আউশের বম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। আবহাওয়া ও পরিবেশ অনুকূলে থাকায় এ বছর ধানের ফলন ভালো হয়েছে বলে জানান কৃষকরা। অনেকেই এখন ধান কাটা শুরু করেছেন। বছরের এ সময় অধিকাংশ জমি পতিত থাকত। গত বন্যায় অনেক কৃষক ঘরে ফসল তুলতে না পারায় বোরোর পর আউশের ফলনে তারা একে উপরি হিসেবে দেখছেন। এর ফলে কৃষকরা যেমন লাভবান হচ্ছেন, তেমনি দেশের খাদ্য চাহিদা মিটিয়ে ফের বাইরে রফতানির আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে বিস্তারিত-

চিলমারী
আউশ ধান চাষে কৃষি বিভাগ দেখালো ধান চাষের বাজিমাত ফুটিয়ে তুলল কৃষকের মুখে হাসির ঝিলিক। চিলমারী উপজেলায় এ বছর সর্বপ্রথম উচ্চ ফলনশীল (উফশী) আউশ ধানের চাষাবাদ হয়েছে। আশাতীত ফলন হওয়ায় কৃষকগণও অত্যন্ত খুশি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, এ বছর খরিপ-১ মৌসুমে উচ্চ ফলনশীল (উফশী) আউশ ধান চাষে প্রণোদনা কর্মসূচীর আওতায় এবারই পরীক্ষামূলকভাবে চিলমারী উপজেলায় আউশের চাষাবাদ হয়েছে। উপজেলার রমনা, থানাহাট ও রাণীগঞ্জ এই ৩টি ইউনিয়নে কৃষকদের উদ্বুদ্ধকরণের মাধ্যমে রাজি করিয়ে প্রায় ২৭০ জন কৃষকের ১৩০ হেক্টর জমিতে উচ্চ ফলনশীল আউশ ধানের চাষাবাদ করা হয়। এর মধ্যে সরকারিভাবে বিনামূল্যে ১শত জন কৃষককে বীজ ধান, সার ও টাকা দিয়ে সহায়তা করা হয়। প্রথমবারের মতো আউশ চাষাবাদ করে কৃষকগণ আশংকায় ভুগলেও আশাতীত ফলন হওয়ায় কৃষকগণও অত্যন্ত খুশি হয়েছেন। ধানের ফলন ও উৎপাদন দেখে কৃষককূলে রীতিমতো সাড়া জেগেছে বলে জানা গেছে। সেই সঙ্গে যারা চাষাবাদ করেননি তারা দুঃখ প্রকাশ করছেন। বেলেরভিটা এলাকার কৃষাণি রেজিয়া বেওয়া মুখে হাসি নিয়েই বলেন, কৃষি অফিসের সহযোগিতায় এই প্রথম আউশ ধান আবাদ করে লাভের মুখ দেখছি। এছাড়াও একই জমিতে তিনবার আবাদও করতে পারমু।

রমনা এলাকার আ. জলিল, সাজেদুলসহ বেশ কয়েকজন কৃষক বলেন, আমরা যুগ যুগ ধরে জমিতে আমন ও বোরো চাষাবাদ করতাম। আমন ধানের চারা বপনের সঙ্গে সঙ্গে বন্যা এসে খেয়ে ফেলে। তাই কয়েক বছর ধরে জমি পতিত রাখি। বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর আমন ধান আবাদ করি। এ বছর উপজেলা কৃষি অফিসার ও ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আমাদের বুঝিয়ে উচ্চ ফলনশীল আউশ ধানের চাষাবাদ করিয়েছেন। এতে আমরা আশাতীত উপকৃত হয়েছি। এখন আমরা আউশ কেটে আবার রোপা আমন চাষাবাদ করছি। আমাদের জমি দুই ফসলি থেকে তিন ফসলি হয়ে গেছে। থানাহাট ও রানীগঞ্জ ইউনিয়নেও ঘুরে দেখা গেছে আউশ চাষিদের মুখে এখন সুখের হাসি।

উপ-সহকারী কৃষি অফিসার কবিরুল ইসলাম বলেন, অনেক চেষ্টা করে কৃষকদের রাজি করিয়ে কতিপয় কৃষকদের দিয়ে আউশ ধান চাষ করা হয়। ধানের ফলন ভালো হওয়ায় অন্যান্য কৃষকরাও এখন আগ্রহ দেখাচ্ছে। আশা করছি আগামীতে পুরো এলাকায় এই ধানের ব্যাপক চাষ হবে।

উপজেলা কৃষি অফিসার মো. খালেদুর রহমান বলেন, চলতি খরিপ-১ মৌসুমে চিলমারী উপজেলায় ১৩০ হেক্টর জমিতে আউশ ধানের আবাদ হয় যা গতবারের প্রায় তিন গুণ। প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় বীজ ও সার সহায়তা এবং রাজস্ব খাতের অর্থায়নে এডাপশন কর্মসূচির বীজ সহায়তা প্রদান ছাড়াও কৃষক উদ্বুদ্ধকরণের মাধ্যমে এই আবাদ অর্জিত হয়েছে। ধানের মাঠের অবস্থা খুব ভাল। আশা করা যাচ্ছে কৃষক কাঙ্খিত ফলন পাবেন। ইতোমধ্যে প্রায় অর্ধেক ধান কর্তন হয়েছে। সেখান থেকে হেক্টর প্রতি প্রায় ৪.৫০ থেকে ৫ মে.টন ফলন পাওয়া যাচ্ছে। কৃষক এ ধান চাষে অভ্যস্ত হয়ে গেলে এবং সঠিক পরিচর্যা করলে আরও বেশি ফলন পাওয়া সম্ভব। আউশ মৌসুমের জাত সম্পর্কে জানতে চাইলে উপজেলা কৃষি অফিসার বলেন, চলতি মৌসুমে চিলমারী উপজেলায় ব্রিধান ৪৮, নেরিকা মিউট্যান্ট, ব্রিধান ৪৩, ব্রিধান ২৮ ইত্যাদি জাতের চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে ব্রিধান ৪৮ এর ফলন সব থেকে ভাল। ব্রিধান ৪৮ আউশ মৌসুমের জন্য একটি উচ্চ ফলনশীল জাত। সঠিক পরিচর্যার মাধ্যমে এ ধান চাষে বোরো মৌসুমের মতো ফলন আনা সম্ভব। তাছাড়া সময়মতো বৃষ্টি পেলে সেচের খরচও লাগে না। বন্যায় ক্ষতির আশঙ্কা আছে কি না এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তুলনামূলকভাবে উঁচু জমি নির্বাচন করে এ ধান চাষের চাষি নির্বাচন করা হয়েছে। তবে রবি মৌসুমে বোরো ধানের পরিবর্তে মসুর, সরিষা, গম জাতীয় ফসল করে বন্যার ঝুঁকি এড়িয়ে এ ধান চাষ করা সম্ভব। এতে দুই ফসলি জমিতে বছরে ৩টি ফসল ফলানো সম্ভব হবে। সে জন্য এখন থেকেই কৃষক পর্যায়ে পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে।

নন্দীগ্রাম
বগুড়ার নন্দীগ্রামে আউশ ধান কাটা শুরু হয়েছে। আউশ ধানের মাঠ এখন পাকা ধানের সোনালী হাসি। উজ্জল রোদে সেই হাসি আরও ঝলমল করে উঠছে। অনেক মাঠেই কৃষক কাস্তে নিয়ে ধান কাটার উৎসবে নেমে পড়েছেন। আবহাওয়া ও পরিবেশ অনুকূলে থাকায় এ বছর ধানের ফলন ভালো হয়েছে এতে করে কৃষকের মন ভরে উঠেছে আনন্দে। মাঠ পর্যায়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চলতি আউশ মৌসুমে বাম্পার ফলনের আশা করা হলেও কৃষকরা ধান বিক্রি করে আশানুরূপ দাম পাবে কিনা তা নিয়ে চিন্তা রয়েছে। কারন সব ধরনের কৃষি পণ্যের দাম বাড়ার কারনে উৎপাদন খরচ বেড়েছে।

কৃষকরা জানান, এবার প্রতি বিঘা আউশ চাষে সাড়ে ৫ হাজার থেকে ৬ হাজার টাকা খরচ হয়েছে তবে এবার উৎপাদন ভালো হয়েছে। কিন্তু উৎপাদন খরচ তোলা নিয়ে চিন্তা এখন ও কাটেনি। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানায়, এ বছর চলতি আউশ মৌসুমে শুধু নন্দীগ্রাম উপজেলায় ৮ হাজার ২শ ৫৭ হেক্টর জমি চাষের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করা হলেও অর্জিত হয়েছে ৯ হাজার ৫শ’ হেক্টর। আর এই জমি থেকে ৩০ হাজার ৫শ’ ৮৩ মেট্রিক টন ধানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। পাশাপাশি ধানের ফলন আশানুরূপ হওয়ায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। আউশ ধান দেশের খাদ্য চাহিদা পূরণে অগ্রণী ভূমিকা রাখে। তাই এবারও কৃষকরা মাঠের ফসলি জমির প্রতি যত্নশীল হয়েছিল। সে কারণে ভালোভাবে ফসল ঘরে তুলতে পারলে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ধান পাবে।

এ প্রসঙ্গে উপজেলার হাটলাল গ্রামের কৃষক আ.রহিম, আনছার আলী, রনবাঘা গ্রামের কৃষক আ. কালাম জানান, প্রতি বিঘায় পাঁচ ধান ১৬ থেকে ১৮ মণ ও পারি জাতের ধান ১৫ থেকে ১৬ মণ হারে ফলন হচ্ছে। এছাড়াও প্রতি মণ পারি ৬৫০ টাকা ও পাঁচ ধান ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকা দরে বিক্রয় হচ্ছে। ধান কাটার শুরুতেই ভালো ফলন ও ন্যায্য দাম পেয়ে তারা খুব খুশি বলে জানিয়েছেন।

নন্দীগ্রাম উপজেলা কৃষি অফিসার মোহা. মশিদুল হক জানান, ভালো আবহাওয়া, কৃষি অফিসের সঠিক পরামর্শ ও কৃষকদের কঠোর পরিশ্রমে এবার উপজেলায় আউশ ধানের ভালো ফলন হয়েছে।

৯ বছরে ইলিশের উৎপাদন বেড়েছে ৬৬ শতাংশ : মৎস মন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বর্তমান সরকারের ৯ বছরে ইলিশের উৎপাদন ৬৬ শতাংশ বেড়েছে। ২০০৮-০৯ অর্থবছরে

দালিলিক প্রমান পেলে যে কারো বিরুদ্ধেই মামলা হতে পারে : দুদক চেয়ারম্যান

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, দালিলিক প্রমাণ পেলে

অবৈধ সম্পদ অর্জনে বাপেক্স জিএম আনোয়ার দম্পতির বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে করা মামলায়

sangbad ad

ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাচক নান্নুর বাসায় চুরি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাচক এবং সাবেক অধিনায়ক মিনহাজুল আবেদীন নান্নুর

প্যানেল মেয়র ওসমান গণির শেষ যাত্রায় নগর উন্নয়ন সাংবাদিক ফোরামের শ্রদ্বাঞ্জলি

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) প্যানেল মেয়র মো. ওসমান গণির মরদেহে

ঘোড়াশাল পৌর তাঁতী লীগের কমিটি গঠন: সভাপতি আমজাদ হোসেন ও সাধারন সম্পাদক মাকসুদ রহমান রাসেল

প্রতিনিধি, পলাশ নরসিংদী

image

মো. আমজাদ হোসেন কে সভাপতি, মো. মাকসুদ রহমান রাসেল কে সাধারন সম্পাদক ও

ডিএনসিসির পানেল মেয়র মো. ওসমান গণি আর নেই

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) পানেল মেয়র ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক আলহাজ মো. ওসমান

মাদক ব্যবসায়ীর ছুরিকাঘাতে মাদকসক্ত পরিবহন শ্রমিক খুন!

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

রাজধানীর মিরপুরের রাইনখোলা এলাকায় মাদক ব্যবসায়ীরা ছুরিকাঘাত করে জাকির

নড়িয়া ও জাজিরার ভাঙন রোধে জরুরী পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান তৃণমূল বাংলাদেশের

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

image

শরিয়তপুর জেলার নড়িয়া ও জাজিরা উপজেলাকে প্রমত্তা পদ্মার ভাঙন থেকে বাঁচাতে জরুরী

sangbad ad